FriendsDiary.NeT | Friends| Inbox | Chat
Home»Archive»

Motivation: Personal Time-Zone

Motivation: Personal Time-Zone

*

সময়ের হিসেবে নিউইয়র্ক ক্যালিফোর্নিয়ার চাইতে ৩ ঘণ্টা এগিয়ে। তাই বলে কি ক্যালিফোর্নিয়া স্লো।?

কেউ কেউ ২২ বছরেই গ্র্যাজুয়েট হয় কিন্তু একটা ভালো চাকরির জন্য অপেক্ষা করে ৫ বছর।
কেউ কেউ CEO হয় ২৫ বছর বয়সে কিন্তু দেখা গেলো তার জীবনাবসান ঘটে ৫০ বছর বয়সে। কেউ আবার ৫০ বছর বয়সে CEO হয়ে ৯০ বছর বয়স পর্যন্ত কাজ করে যায়।

আপনার বয়সে কেউ বিয়ে করে বাবা কিংবা মা হয়ে গেলো; অথচ আপনি এখনো প্রেমেই পড়লেন না। ওবামা প্রেসিডেন্ট পদ থেকে অবসর নিয়েছেন ৫৫ বছর বয়সে আর ট্রাম্প ওই পদে আসীন হয়েছেন ৭০ বছর বয়সে।

ক্যালিফোর্নিয়া কিংবা নিউ ইয়র্কের মত এই পৃথিবীর প্রত্যেকটা মানুষের রয়েছে নিজস্ব টাইম-জোন।

মাঝে মাঝে আপনার মনে হবে কেউ একজন আপনার চেয়ে এগিয়ে গেলো; তাতে আপনি হয়তো ঈর্ষান্বিত হয়ে নিজেকে ভাববেন অযোগ্য।
আবার কেউ একজন আপনার চাইতে পেছনে পড়ে গেলে আপনি হয়তো তাকে খুব একটা হিসেবে আনবেন না।

একটু খেয়াল করলেই বুঝতে পারবেন— আপনি আসলে আপনার টাইম জোনের সাথে অন্যদের টাইম জোনকে মিলিয়ে ফেলছেন।

সবাই আসলে যার যার নিজের ট্র্যাকেই দৌড়াচ্ছে। তাই লক্ষ্যটাও নিজের মতো। অন্যের সাথে তুলনা করলে কখনোই সুখটা পাবেন না।

তার চাইতে স্থির হয়ে বসুন। কারণ, আপনি আপনার টাইম-জোনে একদম সময়ানুবর্তী; দেরিও না আবার আগেও না।

You are very much ON TIME!

[Collected]

*




4 Comments 231 Views
Comment

© FriendsDiary.NeT 2009- 2020